কিভাবে অ্যাকোরিয়াম মাছের যত্ন নেবেন?

অ্যাকোরিয়াম মাছের যত্ন

অ্যাকোরিয়াম মাছের যত্ন নেওয়ার জন্য প্রথমেই প্রয়োজন হয় মাছের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ। কেননা অ্যাকোরিয়াম শুধু ঘর বা অফিস সাজানোর জন্যই নয়, কারন এর মধ্যে রয়েছে জীবন্ত মাছ, তাই উপযুক্ত পরিবেশ গড়ে তুলে অ্যাকোরিয়াম মাছের সৌন্দর্য উপভোগ করা উচিৎ। সেই সাথে মাছের যত্ন নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। মাছ ছাড়ার আগে অবশ্যই আপনাকে অ্যাকোরিয়ামে একটি নাইট্রোজেন সিস্টেম তৈরি করতে হবে। সেজন্য আপনার অ্যাকোরিয়ামে পানি পূর্ণ করে ফিল্টার সংযোগ দিতে হবে। কিন্তু কখনোই গ্রাভেল ফিল্টার ব্যবহার করবেন না এটা খুব একটা কাজে দিবে না। সবসময় এগুলো (গ্রাভেল ফিল্টার) ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করবেন।

বাসাবাড়ি কিংবা অফিসের এক কোণে ছোট বা বড় একটি অ্যকোরিয়াম থাকলে খারাপ দেখায় না। বরং রঙ্গিন মাছগুলোর সৌন্দর্য দেখতে ভালোই লাগে। কিন্তু আমরা ভুলে যাই যে তারা জীবন্ত প্রাণী, ফলে আমাদের অবহেলার কারনে অ্যাকোরিয়ামের মাছগুলো বেশিদিন বেঁচে থাকে না। কাজেই অ্যাকোরিয়াম মাছের যত্ন নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

অ্যাকোরিয়াম মাছের যত্ন নেওয়ার জন্য কিছু টিপস:

সাইক্লিং

অ্যাকোরিয়ামে মাছ ছাড়ার আগে যে কাজটা প্রয়োজন সেটি হলো সাইক্লিং। সাইক্লিং বলতে মূলত মাছ ছাড়ার আগে অ্যাকোরিয়ামের পানির মান মাছ ছাড়ার জন্য উপযুক্ত করে তোলার পদ্ধতিই হলো সাইক্লিং। মাছ ছাড়ার অন্তত এক সপ্তাহ আগে পানিতে অণুজীবের সংখ্যা বৃদ্ধি করা অত্যন্ত প্রয়োজন। এই ধরনের অণুজীব পানির আবর্জনাকে বিয়োজিত করে ফলে সেই পানি মাছের বসবাসের জন্য উপযোগী হয়ে ওঠে। বাজারে এই উপাদান কিনতে পাওয়া যায়। কিন্তু মনে রাখবেন অ্যাকোরিয়ামে মাছ থাকলে কোনোভাবেই সাইক্লিং করা উচিত নয়।

অ্যাকোরিয়ামের পানি নিয়ন্ত্রন

মনে রাখবেন আপনার অ্যাকোরিয়ামের পানির তাপমাত্রা যত বেশি হবে সেই পানিতে অক্সিজেনের পরিমাণ ততই কম হবে। কাজেই আপনাকে আপনার অ্যাকোরিয়ামের পানিতে এয়ার পাম্পের সাহায্যে বেশি পরিমাণ অক্সিজেন সরবরাহ করতে হবে। সপ্তাহে অন্তত ৩০-৪০ ভাগ পানি বদলে দিতে হবে, এতে করে মাছ ভালো থাকবে। অ্যাকোরিয়ামের মধ্যে বেশ কিছু জলজ গাছ লাগালে পানির তাপমাত্রা কম থাকবে। পানি পরিষ্কার রাখতে ফিল্টার ব্যবহার করুন, সেক্ষেত্রে এক মাস পরপর ফিল্টারের ভেতরে থাকা অ্যাক্টিভেটেড কার্বন বদলে দিতে হবে।

মাছের খাবার

অ্যাকোরিয়ামের মাছের যত্নের জন্য মাছের খাবার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মাছ কেনার আগে অবশ্যই জেনে নিতে হবে কোন মাছ কি ধরনের খাবার খায়। মনে রাখবেন মাছকে কখনো অতিরিক্ত খাবার দিবেন না বরং সময়মতো পর্যাপ্ত খাবার দিন। অ্যাকোরিয়ামের মাছগুলো প্রক্রিয়াজাতকরন শুকনো খাবারের পাশাপাশি কিছু ন্যাচারাল বা জীবন্ত খাবারও পছন্দ করে। তাদের মধ্যে রয়েছে যেমন: মশার লার্ভা, কেঁচো, বিভিন্ন পোকামাকড়, পিঁপড়ার ডিম, চিংড়ি এগুলো খেয়েও জীবনধারণ করতে পারে। মাছগুলোকে কম প্রোটিনযুক্ত এবং বেশি ফাইবার আছে এমন ধরনের খাবার দিন। এতে মাছের খাবার হজম করতে সহজ হবে।

অ্যাকোরিয়াম মাছের যত্ন

সাধারণত অ্যাকোরিয়ামের পানির তাপমাত্রা পরিবর্তনের কারণে মাছগুলোর ছত্রাকজনিত রোগ হতে পারে। তাই নজর রাখতে হবে এবং আক্রান্ত মাছকে যত দ্রুত সম্ভব সরিয়ে ফেলতে হবে। প্রয়োজনমতো ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করুন। মনে রাখবেন কখনোই মাছ সরাসরি হাত দিয়ে ধরবেন না সবসময় নেট দিয়ে ধরা উচিত। মাছের পাখনায় সংক্রমণ হয়ে চর্মরোগ দেখা দিলে অ্যান্টিসেপটিক সলিউশন প্রয়োগ করতে হবে, যা অ্যাকোরিয়ামের দোকানগুলোতেই পাওয়া যায়।

কিভাবে অ্যাকোরিয়াম মাছের যত্ন নেবেন

সঠিক মাছ কেনা

নতুর অ্যাকোয়ারিস্টরা যে ভুলটি করে সেটি হলো তারা দোকান থেকে যে কোনো ধরনের মাছ কিনে নিয়ে আসে। মনে রাখবেন যে, কোনো মাছ দেখতে ভাল লাগলেই কিনে ফেলা উচিত নয়। বরং আপনাকে মাথায় রাখতে হবে যে, কোন মাছ কোন উষ্ণতার পানিতে থাকে, কতটা স্থান প্রয়োজন কিংবা একাধিক প্রজাতির মাছ একই সঙ্গে থাকতে পারে কিনা, এই দিকগুলো বিবেচনা করে আপনার মাছ কেনা উচিৎ। পাশাপাশি খেয়াল রাখতে হবে যেন মাছের সংখ্যা অতিরিক্ত হয়ে না যায়।

অ্যাকোরিয়াম পরিষ্কার

প্রতি মাসে অন্তত একবার সম্পূর্ণ অ্যাকোরিয়াম পরিষ্কার করা প্রয়োজন। অ্যাকোরিয়ামে যদি বেশি পরিমাণে মাছ থাকে সেক্ষেত্রে এক মাস হওয়ার আগেই পরিষ্কার করতে হবে। তবে বিশেষজ্ঞদের কথা অনুযায়ী অ্যাকোরিয়ামের প্রতি এক গ্যালন পানিতে একটির বেশি মাছ না রাখা উচিৎ। অ্যাকোরিয়াম পরিষ্কার করার সময় যদি অ্যাকোরিয়ামে কৃত্রিম অক্সিজেনের ব্যবস্থা থাকে তাহলে আগে সেটি বন্ধ করে নিতে হবে। তারপর মাছগুলোকে নিরাপদে জায়গায় সরিয়ে নিতে হবে সেটাও খুব সতর্কতার সঙ্গে।

অ্যাকোরিয়ামে বাহারি রঙ্গের রঙ্গিন মাছের সৌন্দর্য সবাই উপভোগ করতে ভালোবাসে। উপরে আলোচনা করা বিষয়গুলো সঠিকভাবে অনুসরন করতে পারলে আপনার অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার হার কমে আসবে এবং এর পাশাপাশি বাড়িয়ে তুলবে আপনার অ্যাকোরিয়ামের সৌন্দর্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *