অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার কারন কি কি?

অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার কারন

অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার কারন – অ্যাকোরিয়ামের মাছ ভালোবসার কারনে অনেকে অ্যাকোরিয়ামের মাছ পোষেন, কিন্তু অনেক সময় বিভিন্ন কারনে অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যায়। আর প্রত্যেক অ্যাকুয়ারিস্টের কাছে একটি আতঙ্কের নাম হলো অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়া। এই মাছগুলো সবসময় সব জায়গায় পাওয়া যায় না বললেই চলে। যারা এই অ্যাকোরিয়ামের ভালোবাসেন, তারা অনেক পছন্দ করে অনেক দোকান ঘুরে ঘুরে মাছ কিনে থাকেন এবং খুব যত্ন করে মাছ বাড়িতে নিয়ে আসেন। কিন্তু বেশিরভাগ সময়ই দেখা যায় যে অনেক মাছই একদিন বা দুইদিন অথবা সর্বোচ্চ এক সপ্তাহের মধ্যেই মারা যায়। তখন অ্যাকোয়ারিস্টদের মন খারাপ হয়ে যায়, তখন তারা তাদের অ্যাকোরিয়ামের মাছ বাঁচানোর জন্য বিভিন্নজনের মত নেয় এবং মাছ মারা ‍যাওয়ার কারন জানতে চায়। অ্যাকোয়ারিস্টদের নানান লোকের নানান মত নিতে দেখা যায়। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তারা নিরাশ হয়ে যায় এবং মাছ পোষা ছেড়ে দেয়। সেই সাথে অ্যাকোরিয়ামের প্রতি তাদের আস্থা কমে যায়।

চলুন আজকে জেনে নেওয়া যাক অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার প্রধান ৭ টি কারন:

১) এক সঙ্গে ছোট-বড় সব রকমের মাছ অ্যাকোরিয়ামে রাখা

অনেক সময় দেখা যায় যে অ্যাকোয়ারিস্টরা তাদের অ্যাকোরিয়ামে এক সঙ্গে ছোট-বড় সব রকমের মাছ রাখে, তখন এক প্রজাতির মাছ আরেক প্রজাতির মাছের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারে না, ফলে অ্যাকোরিয়ামের পরিবেশ নষ্ট হয়ে যায়, যার কারনে অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

২) অ্যাকোরিয়ামের আয়তন অনুযায়ী মাছের পরিমান বেশি রাখা

অ্যাকোয়ারিস্টরা যখন তাদের অ্যাকোরিয়ামের আয়তনের থেকে অধিক মাছ রাখে, তখন অ্যাকোরিয়ামের মাছগুলো খোলা পরিবেশ পায় না, খোলামেলা পরিবেশ না পাওয়ার কারনে তারা ঠিক মতো সাতাড় কাটতে পারেনা। যার ফলে বেশিরভাগ মাছই মারা যায়।

অ্যাকোরিয়ামের আয়তন অনুযায়ী মাছ রাখার নিয়ম-

10-15 গ্যালন: 4-6 টি ছোট মাছ বা 2-3 টি মাছ।

20-30 গ্যালন: 6-12 টি ছোট মাছ বা 3-6 টি মাছ।

40-50 গ্যালন: 8-15 টি মাছ।

75-100 গ্যালন: 15-20 টি মাছ।

৩) দোকান থেকে রোগাক্রান্ত মাছ কিনে এনে অ্যাকোরিয়ামে ছাড়া

অনেক সময় অ্যাকোয়ারিস্টরা দোকান থেকেই রোগাক্রান্ত মাছ কিনে নিয়ে আসে। যার কারনে দেখা যায় যে আপনার অ্যাকোরিয়ামে থাকা বাকি মাছগুলোও রোগাক্রান্ত হয়ে পড়ে। এতে করে আপনার অ্যাকোরিয়ামের মাছ বেশিদিন বেঁচে থাকতে পারে না। এর পাশাপাশি আপনি যদি অ্যাকোরিয়াম মাছের রোগ নির্ণয় করতে না পারেন সেক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটবে।

অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার কারন

৪) অ্যাকোরিয়ামের পানি সঠিক ভাবে পরিষ্কার না করা

আপনি যদি অ্যাকোরিয়ামের পানি সঠিকভাবে পরিষ্কার না করেন তাহলে আপনার অ্যাকোরিয়ামের মাছ বেশিদিন বাঁচবে না বললে ভুল হবেনা। কারন মাছেরা মলত্যাগ করে যার কারনে পানি দূষিত হয় এবং আপনি যখন খাবার দেন ঠিক সেই সময়ও পানি অপরিষ্কার হয়ে যায়। কাজেই আপনার উচিত সপ্তাহে অন্তত এক থেকে দুইবার অ্যাকোরিয়ামের পানি পরিষ্কার করা।

৫) হঠাৎ করে পানির তাপমাত্রার পরিবর্তন করা

অ্যাকোরিয়ামের মাছগুলো একটি সুষ্ঠ পরিবেশে বেড়ে উঠতে থাকে। তারা তখন ঐ পরিবেশের সাথে নিজেদের খাপ খাইয়ে নিতে সক্ষম হয়। সেই সময়ে হঠাৎ করে পানির তাপমাত্রা পরিবর্তন করলে অ্যাকোরিয়ামের পরিবেশ নষ্ট হয়ে যায় এবং মাছ মারা যায়।

৬) বেশি  পরিমান খাবার দেওয়া

অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার প্রধান এবং অন্যতম কারন হলো মাছেদের বেশি পরিমান খাবার দেওয়া। নতুন অ্যাকোয়ারিস্টরা এই ভুল কাজটি বেশি বেশি করে থাকে। তারা মাছ কিনে নিয়ে আসার পরে মাছের তুলনায় অধিক বেশি পরিমানে খাবার দেয়। যার ফলে অ্যাকোরিয়ামের সুষ্ঠ পরিবেশ থাকে না এবং মাছ মারা যায়। এই বিষয়ে নতুন এবং অভিজ্ঞ অ্যাকোয়ারিস্ট সবাইকে সচেতন হওয়া উচিত।

অ্যাকোরিয়াম মাছের খাবার দেওয়ার নিয়ম জানতে এখানে ক্লিক করুন

৭) পানির মধ্যে গাছের পঁচা পাতা পরিষ্কার না করা

অ্যাকোরিয়াম মাছ মারা যাওয়ার আরেকটি প্রধান কারন হলো পানির মধ্যে গাছের পঁচা পাতা পরিষ্কার না করা। একটি অ্যাকোরিয়ামের সৌন্দর্য বাড়াতে এবং অ্যাকোরিয়ামের সুষ্ঠ পরিবেশের জন্য অ্যাকোরিয়ামে বিভিন্ন ধরনের গাছ দিয়ে সাজানো হয়। কিন্তু অনেক সময় অ্যাকোয়ারিস্টরা এই গাছগুলোর পঁচা পাতা পরিষ্কার করতে ভুলে যায়, যার ফলে অ্যাকোরিয়ামের পানি দূষিত হয় এবং পরিবেশ নষ্ট হয় এতে অধিক হারে অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যায়।

উপরের বর্ণিত গুরুত্ত্বপূর্ণ কারনগুলি, অ্যাকোরিয়ামের মাছ মারা যাওয়ার কারন। নতুন এবং অভিজ্ঞ অ্যাকোয়ারিস্টরা যদি এই বিষয়গুলো দেখেশুনে অ্যাকোরিয়ামের যত্ন নেয় তাহলে অ্যাকোরিয়ামের মাছ বেশিদির বাঁচার সম্ভাবনা থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *